Friday, November 15, 2013

Quick Tip for Facebook posts

I didn't intend to experiment but it worked out like one. Yesterday, I put a post on my author FB page announcing that Mark Taylor: Genesis was doing a Kindle Countdown Deal. I've been aware that Facebook wall posts with links in them aren't seen by as many followers, but I really had no concrete proof.

The post I made yesterday had only 49 views in over 24 hours. I looked at it a few minutes ago and realized I had forgotten to put the link to my book in the comments rather than in the wall post itself, so I re-posted the exact same post, except I moved the link to the comments. A half-hour later, out of curiosity, I checked to see how many views it had. I couldn't believe it! It had already been seen by 70 people!


I don't know how long this tip will be valid before FB changes their ways, but it really stinks. They want us to pay to boost posts, and I've done that a few times, but I hate doing that. It's not organic and shows the posts to friends of those who like my page--as if their friends will automatically want to get posts about my books and share the same reading tastes.


What I really hate is that whenever I post something on my wall, a box pops up encouraging me to 'Boost this Post' and it usually has a starting cost of $30 already marked in the box. All I would have to do to 'boost' the post is to hit an enter box. That's it. Sometimes it comes up for $60!  I'm scared to death I'll accidentally boost a post or two. You can go in and change the amount to as low as $5, which is the most I've ever done, but it bugs me that we have to pay to boost the posts to our followers.


Anyway, does anyone else have any good tips for using Facebook to reach readers?


ETA: It's now been 50 minutes since I posted the FB post. It's been seen by 149 people. Quite a difference! The one from yesterday is still at 49 total.

Thursday, November 14, 2013

Why "Tinder App" in Facebook is so famous now a days?

There is a buzz going around about "Tinder" app. Recently introduced in Facebook, this is an app that finds out who lies you nearby and starts connecting with them but only when you are also interested in that person. 

Purely an app that lets you connect with others nearby your location. 



It is an app for iOS users which is readily available in iTunes Store. You can download right here: 


Anonymous persons get connected with each other if they are liked by each other in Tinder.

Features : 
  1. Shows you the persons who are interested in you 
  1. If you like the same person then this app makes an introduction and lets you chat within the app
 
But privacy here is the most important point.
For using this app, you need to log in using your Facebook account.
As this app will find out the friends or other anonymous person nearby you, it goes without saying that it will use your location details. To use or not to use while granting permission to this app is to be taken into consideration.

Will you share your location details to any other person who is unknown to you and still liking you? Keep steps very carefully before using this app.
In the next post I will discuss some important tips to maintain privacy before using Tinder app .

Did you reset your password in Facebook after "Adobe" hack ?

News last month stated that Adobe was hacked on 3rd October, which held 150 million users account's and other personal information like name, profile picture, Geo location, credit card number, etc. 
 


Users normally use the same passwords for logging in different sites. If you have your account with Adobe and also with Facebook and the same password you are using for signing into both, then due to the Adobe security hack, your password with other details may get stolen in the issue. 


To protect its users, Facebook is taking some important steps by asking anyone that used identical login credentials to change their Facebook password immediately. 

Facebook engineers are searching through the publicly posted database that has details on Adobe accounts. If match is discovered, then Facebook displays an alert message of a "security incident on another website not related to Facebook". 

The time has come for you to reset the passwords in Facebook to avoid your personal credentials being stolen. 
 
 

Wednesday, November 13, 2013

Turn ON/OFF Num Lock on Startup

Most of standard keyboards come with a small numeric keypad which identified by the numbers from 0 to 9. However, this numeric keypad is also served for some other functions such as "Page Up", "Page Down", "End", "Home", etc... depending on which mode of the "Num Lock" is being used. Many Windows users find this numeric keypad useful to type the numbers faster. But oopps... after hitting a several keys on the numeric keypad, you recognize the outcomes are not what you expected. Then you recognize the "Num Lock" mode is "OFF", so you just need to switch it on, and... start over your typing! The bad news is, by default, Windows turns the Num Lock off; however, the good news is, you can configure Windows to turn this Num Lock ON so that whenever you mean "number", you really get a number.
Read on, you'll get the details how to set Windows to keep the Num Lock status "ON" as default. In fact, you will need to make a small change on your Windows Registry to turn the Num Lock ON everytime Windows starts up.
IMPORTANT This article will guide to some steps to modify your Windows Registry. Stop if you're not familiar with the Windows Registry. Making a wrong change on the Windows Registry could cause critical problems to your computer.
Proceed at your own risks
This tip modifies the Windows Registry. So be aware and careful when following the steps. Damage the Windows Registry might damage your Windows.

  1. Open the "Registry Editor" ("Start" >> "Run", then type "regedit" and Enter).
  2. Expand to the following key:
    HKEY_CURRENT_USER\Control Panel\Keyboard\
  3. Within the keyboard folder, you should have a string value named "InitialKeyboardIndicators" with a value of 0, 1, or 2.
  4. Double-click on this string value "InitialKeyboardIndicators" and edit the value to what you want. Below is the explaination of the values:
    0
    : Num Lock is turned OFF on startup
    1
    : Disable Num Lock
    2
    : Num Lock is turned ON on startup

Increase RAM speed using notepad.

Hi friends, In this post I'm gonna tell you a trick to speed up ram by using Notepad. You might have lot of problems sometimes that your computer not responding. You can use this trick and avoid that.  And it's an easy task to do.
Lets start,
  • At first open notepad.
  • Then type the code bellow.
FreeMem=Space(64000000)
  • Now save the file as cleanRam.vbs
  • That's it. Open the file (double click) and you are done.
 If any questions feel free to comment. 

INCREASE SPEED OF HARD DISK

It is common observation that some times our computer slows down due to low performance of hard drive. This problem happens due to the slow performance or poor speed of hard drive. When we say about poor performance, actually we mean, poor speed of reading/writing of hard drive. This problem can be solved by increasing the hard drive speed. Follow these steps to solve your problem.


Click Start menu and select run.
Now type (sysedit.exe) in run and press enter.
System configuration editor will appear.
Here you can see some multiple windows but you will select (system.ini).
This window contains a line (386enh)
Now after this line type (irq14=4096)
Now close this window and save it.
Reboot your computer now.
You will surely feel better performance of your computer.
Enjoy.

How to Set Up and Troubleshoot a Home Computer Network

Setting up a home computer network may sound daunting, but it’s relatively simple, provided you break everything down into specific steps. Home computer networks are ideal for sharing a wireless connection among multiple computers, especially for those who have a home office, teenagers, or another computer configuration.

Purchasing a Router

Before you begin to worry about software, worry about hardware. A excellent router, like a Cisco router or a Linksys router, will save you from having to endlessly reboot and reprogram while still allowing you to quickly set up a home network. Make sure you buy from a company that has years of experience designing high quality routers that are capable of handling high amounts of traffic (such as data heavy media files). Virtually any home network will run smoothly without irritating slowness or delays.

Wireless Bandwidth

After you’ve purchased a router, the next step is to determine how much bandwidth you are receiving from your wireless connection. This becomes particularly important if you have a household where the network users are habitually downloading movies or other large data files. While a router can rapidly transfer this information, it is constrained by the amount of bandwidth available to the household. A connection that transmits data at 2.4 GHz with a 54 megabit speed is usually adequate to the task.
If your network feels exceptionally sluggish, check to make sure that you are receiving the wireless by ‘pinging’ the network. Alternatively, if you are receiving the full wireless bandwidth but are still experiencing slow results because of the types of media you are transferring, you may consider paying for a faster service.

Software Drivers

While software drivers for networking are fairly easy to find and download from the Internet, purchasing software directly from a computer retailer is recommended as a way to keep your network free of faulty software. A higher incidence of spyware and viruses makes downloading free software inadvisable, especially for something as sensitive as a computer network.
Purchasing software from one of the major companies, such as McAfee or Symantec, will also provide you with another vital component of wireless home networking: a firewall. Because wireless networks are difficult to secure, the best option is to buy software that not only allows you to network, but is built specifically to keep out uninvited users. Firewalls are designed to protect your valuable information behind a tightly secured ‘wall’ which can’t be accessed unless a very specific encrypted code is used.

Basic Set-Up

Now that you have all the components, you’ll want to set up the router first. Install the software driver onto each computer that will use the network. Set up a passkey that is fairly hard to break. Avoid simple or obvious terms that an outside user could easily guess. Set up each computer with this information.
The company that is providing your wireless connection will usually assign you a name and a passkey. However, in some configurations, you will be able to reprogram this information.

Troubleshooting

No matter how expertly a system is set up, on occasion a technical problem manifests, resulting in a lack of connectivity for computers. There are a few ways to quickly check what’s working and what’s not.
Usually, problems are caused by one of two things: the software on the computer itself is malfunctioning, and not allowing the computer to connect. You can test this by seeing if any other computers can connect to the network. If they can, the problem is local to that computer. A simple reboot of the software should solve this problem. However, if the software continues to be unable to connect to the internet, you will need to uninstall the software, and then reinstall it. Sometimes, a version can become corrupted. By wiping it clean and starting anew, the problem should resolve itself.
The second most common problem is that the router needs a quick reboot. If you purchase a quality router, you will not have this problem very often, although every now and again even the best routers need a quick reboot. Turn the router off for at least thirty seconds. Switch it back on, and check your connectivity in about ten minutes. This gives the system plenty of time to reset itself.
If this doesn’t work, the wireless provider may temporarily be out. Call your wireless provider to determine if they are experiencing an outage, and when you can expect the resumption of service. If all of these methods don’t resolve your problem, there is a basic flaw in your initial setup.

How to Protect Your Computer From Viruses

With millions of computer users browsing the web at any given time, there are plenty of targets for malicious coders. While computer experts don’t always know why coders choose to build harmful computer programs, the fact is that it happens all the time. Computer viruses can steal personal information, interfere with normal operations, attract spam and even shut down your computer’s hard drive. Protecting your computer is critical for browsing success.

Start With the Basics

Most computer systems come with security features already in place. For example, the Windows operating system is packaged with Microsoft Windows Security Center. When you first open, boot up and register a new computer, you should make sure that this program is functioning. It will give basic protection against spyware, viruses and malware. In addition, a basic firewall is built into this program, providing additional protection and stops for potentially harmful programs. Upon activation, don’t be surprised if your security system needs immediate updating. Software that protects your computer needs regular and consistent updating to stay useful. Viruses are constantly being generated and the several-month lag between when your computer was made and when you first started using it can mean that the database the security system is loaded with is severely out-of-date.

Upgrade to Meet Your Needs

Many people operate computers for a long time with only basic protection in place. However, heavy computer users or those who have risky browsing habits can sometimes benefit from upgrading their virus, spyware and malware protection, as well as using a fuller-featured firewall; this is especially important if you use a networked computer system. Basic or free virus protection will still scan and update for viruses. Paid programs, however, offer more features, including ease-of-use and convenience features. The most important thing is to verify the publisher and make sure you are getting what is promised. Most well-known virus protection programs, such as AVG and Norton Security, have reviews available to help you make your choice.

Learn About Spyware Risks

Spyware creates risks that many computer users are not aware of. If you are only protecting against viruses, you could be leaving your computer open to damage. Most people are familiar with spyware that initiates and attracts annoying ad programs. Spyware, however, can be much more malicious as well. Your shopping habits can be tracked by spyware. While not exactly harmful, some people consider this a breach of privacy. The worst spyware programs interfere with normal operations and can even track what you type, sending personal information to people who want to steal your identity. Some spyware redirects your browser to different web addresses, increasing your risks of virus infection and fraud.

How Viruses Work

The main difference between spyware and viruses is how they are spread. A virus reproduces itself and attaches to any document that the computer sends, while spyware can be stored as a cookie or tracking code. A virus is most often found traveling with a piece of computer software, such as a document, picture or piece of music. When dealing with email, it is necessary to open an attachment to become infected, indicating that, in most cases, the computer user must somehow invite the malicious software to replicate on their system. Of course, most people have no idea it is there or what is happening. Some of the sneakiest and most harmful viruses actually masquerade as virus protection software, making them extremely hard to detect. Because of this, it’s crucial to be familiar with your particular virus protection program and know what it looks like and what the normal scripts and prompts are during operation. Viruses do some of the same things that spyware does; they just accomplish it differently. An active virus can steal personal information, generate ads or shut down your system, including the very virus protection programs that can fix the issue.

Take Steps For Protection

Like anything, the best way to protect against viruses is to be educated. Become familiar with what malicious software may look like. If you get an email or are asked to download a file that you don’t recognize or looks suspicious, do your homework. Research virus protection, spyware, malware and firewall programs and use them to their fullest capacity. Set the software to update and scan automatically to make sure that the system is constantly monitored. In addition, regularly check on the databases published by various virus protection services; many will provide lists of symptoms and risks, as well as the standard way the file gains access for no cost to the public.

How to Improve Your Computer’s Performance

Tips for Speeding Up Your PC

Few things are as frustrating as dealing with a slow, sluggish computer. When a computer is brand new, it works wonderfully well. Over time, though, its performance can slowly begin to worsen. This happens for a number of reasons, but the biggest culprits are things like spyware, adware and other computer threats that are unwittingly downloaded along with other content while online. You don’t have to download thousands of MP3s, movies or other items to experience these problems, either – nobody is immune to them. Instead of accepting the situation, there are plenty of techniques and strategies that you can use to make it better – a few of the best ones are outlined below.

Strategy #1: Clean Your Computer’s Windows Registry

The biggest cause of slow, sluggish PC performance is errors and problems within its Windows registry. Adware, spyware and other threats usually target the registry, damaging or misplacing important files within it. When it comes to PC cleaning, a daily Windows registry cleaning should be at the top of your list of priorities. However, this should never be done manually – there are too many opportunities for major errors that could seriously damage your PC’s operating system. Instead, invest in a high-quality Windows registry cleanup program and configure it to run once per day – you won’t believe the difference that it makes.

Strategy #2: Remove Unneeded Files

Every time you log on to the Internet or otherwise use your computer, temporary files are generated. They are usually only needed once; however, they don’t disappear on their own. Instead, they accumulate over time until they are cluttering up your computer’s file system and affecting its performance. While it’s possible to remove these files one-by-one, it’s much easier and quicker to use a PC cleaning tool that’s designed for the purpose. Try to do so about one time per week to keep your computer humming along with ease.

Strategy #3: Remove Unneeded Programs

Like many people, you probably download and try out many different programs each month. How many of them do you actually end up using on a regular basis? Chances are, not very many of them. By getting into the habit of uninstalling unused and unneeded programs, you can keep your computer’s file system a lot less cluttered. In turn, your PC’s performance will improve dramatically. You can optimize your computer in this way by using its Add/Remove Programs feature. Its location varies by operating system, but you should be able to find it somewhere in the Control Panel.

Strategy #4: Empty the Recycle Bin

When you click “delete” on a file or a program, it doesn’t go away for good – not immediately, anyway. Instead, it sits in a kind of purgatory in your computer’s Recycle Bin. As things pile up in the Recycle Bin, your computer can start exhibiting some very annoying problems. If sluggish startups and frequent crashes are occurring with increasing frequency – and your computer’s recycle bin is very full – go ahead and empty it. From then on, get into the habit of doing so about one time per week. This small but important strategy can make a huge difference.

Strategy #5: Perform a Disk Defragmentation

Windows isn’t very efficient when it comes to storing files. It actually splits them up, depositing them into whatever spaces are available. The more spaced apart the pieces of a file are, the harder your computer has to work to make them run. The Windows disk defragmentation system tune-up utility works to piece all of those files back together again. The process is a long one, though, and only needs to be done about four times per year. Set it up to run automatically once every three months. By doing so, you’ll be able to keep your computer running in tiptop shape.
When it comes to keeping your computer running optimally, small but regular maintenance is the best way to go. Protecting your PC only does so much; even the most careful Internet users in the world unintentionally download malicious software from time to time. By using basic system tune-up tools, cleaning your computer’s Windows registry regularly, performing regular file-cleaning maintenance and otherwise optimizing your PC, you should be able to keep it in like-new condition for a lot longer. Even if your computer has been performing slowly for some time, beginning this regimen is sure to produce results. In the end, you’ll be able to enjoy a computer that flies along – instead of one that spins its wheels.

Wednesday, November 6, 2013

অচল মেমোরি কার্ড আবার সচল?

তথ্য স্থানান্তর করার সময় ফোনের মেমোরি কার্ড হঠাৎ খুলে নেওয়া হলে বা কোনোভাবে সংযোগ বিছিন্ন হলে সেটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে অকেজো হতে পারে।নানাভাবে এমন অকেজো মেমোরি কার্ড সচল করা গেলেও সম্পূর্ণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত এবং বাহ্যিকভাবে নষ্ট প্রায় কার্ডকে ঠিক করতে ডেটা রিকভারি সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে।
মেমোরি কার্ডের তথ্য দেখা যাচ্ছে, কিন্তু সেটি ব্যবহার করা না গেলে আপনাকে এই সফটওয়্যার সমাধান দিতে পারে। এ ক্ষেত্রে ডেটা উপস্থিত থাকে কিন্তু কম্পিউটার বা অন্য যন্ত্র সেটিকে পড়তে (রিড) পারে না। এ জন্য কার্ড রিডারে মেমোরি কার্ড ঢুকে নিয়ে কম্পিউটারে সংযোগ দিন। খেয়াল রাখুন, মেমোরি কার্ড ফাইল এক্সপ্লোরারে বা হার্ডড্রাইভের অন্যান্য ডিস্কের মতো দেখালে এটিতে প্রবেশ করা যাবে না, কিন্তু ফাইল সিস্টেম ঠিক আছে। এবার উইন্ডোজ ৭-এ স্টার্ট মেন্যুতে cmd লিখে এর ওপর ডান বোতাম চেপে Run as administrator নির্বাচন করে সেটি খুলুন। কমান্ড প্রম্পট চালু হলে এখানে chkdsk m:/r লিখে এন্টার করুন। এখানে m: হচ্ছে মেমোরি কার্ডের ড্রাইভ । কম্পিউটারে কার্ডের ড্রাইভ লেটার যেটি দেখাবে সেটি এখানে লিখে চেক ডিস্কের কাজটি সম্পন্ন হতে দিন। এখানে convert lost chains to files বার্তা এলে y চাপুন। এ ক্ষেত্রে ফাইল কাঠামো ঠিক থাকলে কার্ডের তথ্য আবার ব্যবহার করা যাবে। মেমোরি কার্ড যদি invalid file system দেখায় তাহলে সেটির ড্রাইভের ডান ক্লিক করে Format-এ ক্লিক করুন। File system থেকে FAT নির্বাচন করে Quick format-এর টিক চিহ্ন তুলে দিয়ে Format-এ ক্লিক করুন। ফরম্যাট সম্পন্ন হলে মেমোরি কার্ডের তথ্য হারালেও কার্ড নষ্ট হবে না।

পেনড্রাইভের শর্টকাট সমস্যা?

কম্পিউটারে অনেকেই শর্টকাট ভাইরাস নিয়ে সমস্যায় পড়েন। বিশেষ করে নিজের কম্পিউটারের বাইরে কোথাও পেনড্রাইভ ব্যবহার করলে অনেক সময় এ ধরনের ভাইরাস পেনড্রাইভে প্রবেশ করে। এই ভাইরাসের কারণে আপনি যখন আপনার পেনড্রাইভ কম্পিউটারে ঢুকাবেন, সঙ্গে সঙ্গে সবগুলো ফাইল এবং ফোল্ডার শর্টকাট হয়ে যায়। চাইলে আপনি আবার আপনার শর্টকাট ফাইলগুলোকে ফিরিয়ে আনতে পারেন।
এ জন্য প্রথমে রানে গিয়ে cmd (Command Prompt) লিখুন এবং এন্টার করুন।এরপর আপনার পেনড্রাইভ ড্রাইভ লেটার যদি E হয়, তাহলে লিখুন E:G এবং এন্টার করুন। এখন Attrib /S /D -R -S ~H লিখুন এবং এন্টার করুন। এবার দেখুন আপনার পেনড্রাইভের সব শর্টকাট ফাইল এবং ফোল্ডার ঠিক হয়ে গেছে। শর্টকাট হওয়া থেকে ফোল্ডার বা ফাইলকে বাঁচাতে আপনার পেনড্রাইভে একটি ফোল্ডার তৈরি করে রাখুন এবং ফোল্ডারটিকে rename করে নাম দিন “?.dat”। ? লেখার জন্য আপনার কি-বোর্ডের Alt চেপে ধরে নিউমারিক কি প্যাডের ৩ চাপ দিয়ে ছেড়ে দিন এবং .dat/.mkv/.jpg ইত্যাদি নাম দিন।
এরপর আপনার পেনড্রাইভে যখনই কোনো ফাইল রাখবেন, এই ফোল্ডারটির ভেতরেই রাখবেন। এই ফোল্ডারে শর্টকাট ভাইরাসের কোনো প্রভাব পড়বে না।

মোবাইল ফোন যেসব ক্ষতি করছে!

নতুন মুঠোফোন কিনতে যাচ্ছেন? মুঠোফোন অতিরিক্ত ব্যবহার করলে কী ধরনের ক্ষতির মুখে পড়তে হতে পারে সে বিষয়গুলো আপনার অবশ্যই জেনে নেওয়া প্রয়োজন। অতিরিক্ত সময় ধরে মুঠোফোন ব্যবহার করার ফলে ব্যবহারকারীর স্বাস্থ্যের ওপর নানা প্রভাব পড়ে। অতিরিক্ত মোবাইল ফোন ব্যবহারের ক্ষতি নিয়ে গবেষণাও হচ্ছে। একাধিক গবেষণার ফলের বরাতে হাফিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মুঠোফোনের অতিরিক্ত ব্যবহারে শারীরিক ও মানসিক নানা সমস্যায় পড়ছেন ব্যবহারকারীরা।

হারানোর ভয়মুঠোফোন সব সময় ঠিক জায়গায় আছে কিনা তা নিয়ে মন সব সময় সতর্ক থাকে। মোবাইল হারানো ভয় থেকে মনের মধ্যে জন্ম নেয় এক সমস্যা। গবেষকেরা মুঠোফোন ও সঙ্গে যোগাযোগ হারানোর এই ভয়জনিত অসুখের নাম দিয়েছেন ‘নোমোফোবিয়া’; যার পুরো নাম ‘নো মোবাইল-ফোন ফোবিয়া’। বর্তমানে যুক্তরাজ্যের ৫৩ শতাংশ এবং ২৯ শতাংশ ভারতীয় তরুণরা এ রোগের শিকার। ৫ বছর আগেও যে রোগের অস্তিত্ব কল্পিত ছিল না, আধুনিকতার সে রোগ নিয়ে দেশে-বিদেশে চিন্তিত মনোবিজ্ঞানী-মহল। অতিরিক্ত মুঠোফোন নির্ভরতা কমিয়ে ফেলতে পরামর্শ দেন গবেষকেরা।
ঘুমের মধ্যে বার্তা পাঠানো
মোবাইল ফোন ব্যবহার করে অতিরিক্ত সময় বার্তা পাঠানো, চ্যাটিং করার ফলে ঘুমের মধ্যেও এর প্রভাব পড়তে পারে। হতে পারে ‘স্লিপ টেক্সটিং’ সমস্যা।  এ সমস্যা হলে রাতে ঘুমের মধ্যে কাকে কী বার্তা পাঠানো হয় তা আর পরে মনে থাকে না। বার্তা পাঠানোর বিষয়টি মাথায় থাকে বলে ঘুমের মধ্যেও হাতের কাছে থাকা মুঠোফোন থেকে অনাকাঙ্ক্ষিত নম্বরে বার্তা চলে যায়। মনোবিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, দুশ্চিন্তা, কাজের চাপ আর মুঠোফোন নিয়ে অনেকের দিন কাটে। এমন অবস্থায় স্লিপ টেক্সটিং ঘটতে পারে। রাতে বিছানার পাশে মুঠোফোন না রাখার পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকেরা।
কমতে পারে চোখের জ্যোতি
যুক্তরাজ্যের চক্ষু বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে জানিয়েছেন, মুঠোফোনের অতিরিক্ত ব্যবহারে দৃষ্টি বৈকল্য সৃষ্টি হতে পারে। এতে করে মায়োপিয়া বা ক্ষীণ দৃষ্টির সমস্যা দেখা দিতে পারে। স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা সাধারণত চোখ থেকে ৩০ সেন্টিমিটার দূরত্ব রেখে তা ব্যবহার করেন। তবে, অনেকের ক্ষেত্রে এ দূরত্ব মাত্র ১৮ সেন্টিমিটার। সংবাদপত্র, বই বা কোনো কিছু পড়ার ক্ষেত্রে সাধারণত চোখ থেকে গড়ে ৪০ সেন্টিমিটার দূরত্ব থাকে। চোখের খুব কাছে রেখে অতিরিক্ত সময় ধরে স্মার্টফোন ব্যবহার করলে জিনগত সমস্যা দেখা দিতে পারে। ক্ষীণদৃষ্টি সৃষ্টির জন্য যা ভূমিকা রাখতে সক্ষম। গবেষকেরা একে ‘এপিজেনেটিকস’ সংক্রান্ত বিষয় বলেন। গবেষকেরা দীর্ঘক্ষণ ধরে স্মার্টফোনে চোখ না রাখতে পরামর্শ দিয়েছেন। দৈনিক কিছু সময় মোবাইল ফোন থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেন তাঁরা। স্মার্টফোন ব্যবহারের ক্ষেত্রে বয়স বিবেচনার বিষয়টিকেও গুরুত্ব দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের গবেষকেরা।
কানে কম শোনা
মুঠোফোন ব্যবহারের ফলে কানের সমস্যা তৈরির বিষয়টি অভ্যাসের ওপর নির্ভর করে। হেডফোন ব্যবহার করে উচ্চশব্দে গান শুনলে অন্তকর্ণের কোষগুলোর ওপর প্রভাব পড়ে এবং মস্তিষ্কে অস্বাভাবিক আচরণ করে। একসময় বধির হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।
শরীরের অস্থি-সন্ধিগুলোর ক্ষতি
অতিরিক্ত সময় ধরে মেসেজ বা বার্তা টাইপ করা হলে আঙুলের জয়েন্টগুলোতে ব্যথা হতে পারে এবং অবস্থা বেশি খারাপ হলে আর্থরাইটিসের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ ছাড়াও অনেকে অনেকেই কাজের সময় মুঠোফোন ব্যবহার করতে গিয়ে কাঁধ ও কানের মাঝে ফোন রেখে কথা বলেন। অনেকেই অতিরিক্ত ঝুঁকে বসে দীর্ঘ সময় ধরে বার্তা পাঠাতে থাকেন। বসার ভঙ্গির কারণেও শরীরে নানা অসুবিধা দেখা দিতে পারে। চিকিত্সকের পরামর্শ হচ্ছে অতিরিক্ত সময় ধরে মুঠোফোনে বার্তা লিখবেন না, এতে করে শরীরের জয়েন্ট বা সন্ধির সমস্যা থেকে সুস্থ থাকতে পারবেন।
কমে যেতে পারে শুক্রাণু
গবেষকেরা জানান, মুঠোফোন থেকে হাই ফ্রিকোয়েন্সির ইলেকট্রো-ম্যাগনেটিক রেডিয়েশন নির্গত হয়। এই ক্ষতিকর তরঙ্গের সঙ্গে মস্তিষ্কে ক্যানসারের যোগসূত্র থাকতে পারে। এ ছাড়া শরীরের অন্য কোষকলা এই ক্ষতিকর তরঙ্গের প্রভাবে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে। ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে পুরুষের প্রজননতন্ত্রেরও। গবেষকেদের দাবি, মুঠোফোন থেকে নির্গত ক্ষতিকর তরঙ্গ শুক্রাণুর ওপর প্রভাব ফেলে এবং শুক্রাণুর ঘনত্ব কমিয়ে দিতে পারে।
যখন তখন রিং টোন!
এ সমস্যা মূলত উদ্বিগ্নতা বা বিষণ্নতা থেকে ঘটতে পারে। এ ধরনের সমস্যা হলে ব্যবহারকারী ফোনের রিং না বাজলে কিংবা ভাইব্রেশন না হলেও হঠাত্্ করেই তা শুনতে পান বা অনুভব করেন। অতিরিক্ত মুঠোফোন ব্যবহারের কারণে এ সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ ধরনের সমস্যা ভুগতে শুরু করলে তা টেরও পান না অনেক ব্যবহারকারী।
ঘুম নেই!
স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, ল্যাপটপ, ডেস্কটপের অতিরিক্ত ব্যবহার ও অতিরিক্ত টেলিভিশন দেখার ফলে সবচে বেশি দেখা দেয় ঘুমের সমস্যা বা নিদ্রাহীনতা। যারা ঘুমাতে যাওয়ার আগে এ ধরনের প্রযুক্তি-পণ্য অতিমাত্রায় ব্যবহার করেন তাদের শরীরে মেলাটোনিনের ঘাটতি দেখা দিতে পারে; যার কারণ প্রযুক্তিপণ্য থেকে নির্গত উজ্জ্বল আলো। এক পর্যায়ে ঘুমের মারাত্মক সমস্যা দেখা দেয় এবং স্লিপ ডিজঅর্ডারের ঝুঁকি তৈরি হয়।
টয়লেট সিটের চেয়েও নোংরা
মার্কিন গবেষকেরা পরীক্ষা করে দেখেছেন, টয়লেট সিটের তুলনায় ১০ গুণ বেশি ব্যাকটেরিয়া থাকে মুঠোফোনে। মুঠোফোন নিয়মিত পরিষ্কার না করায় এটি জীবাণুর অভয়ারণ্য হয়ে ওঠে। গবেষকেরা বলেন, মুঠোফোনে ব্যাকটেরিয়াগুলো ব্যবহারকারীর জন্য খুব বেশি ক্ষতিকারক না হলেও এটি থেকে সংক্রমণ বা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে। নিয়মিত মুঠোফোন পরিষ্কার করলে এ সমস্যা থেকে দূরে থাকা যায়।

যে পেনড্রাইভ চালু করবে নেটবুক

নানা সমস্যার কারণে অনেকসময় অপারেটিং সিস্টেম কম্পিউটার চালু করতে পারে না।অপারেটিং সিস্টেম কম্পিউটার চালু করতে না পারলে চালু করানোর (বুটেবল) সিডি বা ডিভিডির দরকার পরে। কিন্তু নেটবুক কম্পিউটারে সিডি-রম বা ডিভিডি-রম ড্রাইভ থাকে না। আবার কম্পিউটারে এই ড্রাইভ নষ্টও থাকতে পারে। তাই পেনড্রাইভকে কম্পিউটার চালানোর ‘বুটেবল ড্রাইভ’ হিসেবে ব্যবহার করা হয়।
এই বুটেবল পেনড্রাইভে অপারেটিংসিস্টেম ভরা থাকলে দরকারে এটি দিয়ে কম্পিউটার চালু করে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করে নেওয়া যায়।
এ জন্য প্রথমে যে পেনড্রাইভকে বুটেবল করতে চান, সেটি কম্পিউটারের ইউএসবি পোর্টে লাগান। রানে গিয়ে লিখুন cmd এবং এন্টার করুন। লিখুন diskpart এবং এখানে list disk লিখে এন্টার করুন।কম্পিউটারের পেনড্রাইভের Index নম্বরসহ দেখাবে। এবার লিখুন Select disk (Index number)। আপনার পেনড্রাইভ যদি ১ হয়, তাহলে লিখুন Select disk 1 এবং Clean লিখে এন্টার করুন। এবার লিখুন Create partition primary এবং Select partition 1 লিখে এন্টার দিন। এরপর Active লিখে এন্টার করে পেনড্রাইভ ফরম্যাট করতে Format FS=NTFS দিন। আপনার পেনড্রাইভ ফরম্যাট হতে যেটুকু সময় লাগবে ততক্ষণ অপেক্ষা করুন। এবারে Assign লিখে এন্টার দিলেই আপনার কাজ শেষ এবং Exit লিখে বেরিয়ে আসুন। আপনার পেনড্রাইভটি বুটেবল হয়ে যাবে। —মো. ফিরোজ আহমেদ

ল্যাপটপের ব্যাটারির আয়ু বাড়ায় কম চার্জ!

ল্যাপটপ ও ইন্টারনেট এখন মানুষের জীবনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে গেছে। পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তে যোগাযোগ কিংবা কাজের সময় আমরা ল্যাপটপের ওপর নির্ভর হয়ে পড়ছি। কিন্তু অধিকাংশ ল্যাপটপ ব্যবহারকারীকেই ল্যাপটপে চার্জ কতক্ষণ থাকবে তা নিয়ে চিন্তায় থাকতে হয়। চার্জ যাতে শেষ হয়ে না যায় এজন্য অনেকেই চার্জারটি ল্যাপটপের সঙ্গে লাগিয়েই তা ব্যবহার করতে দেখা যায়। প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হচ্ছে, ল্যাপটপের ব্যাটারির আয়ু বাড়াতে একটানা চার্জার ল্যাপটপে লাগিয়ে রাখা বন্ধ করতে হবে। কারণ, সব সময় চার্জার লাগিয়ে রাখার অভ্যাস গড়ে তুললে ল্যাপটপের ব্যাটারি দ্রুত শেষ হয়ে যায়।
কানাডার ক্যাডেক্স ইলেকট্রনিকসের প্রধান নির্বাহী ইসিডোর ব্যাচমানের পরামর্শ হচ্ছে, ল্যাপটপের লিথিয়াম-পলিমার ব্যাটারিতে পূর্ণ চার্জ হয়ে গেলে অবশ্যই চার্জার খুলে ফেলতে হবে। পারলে চার্জ পরিপূর্ণ হওয়ার আগেই তা খুলে ফেলা উচিত।  ব্যাটারিতে সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ চার্জ করা উচিত এবং এরপর ৪০ শতাংশ খরচ করে তারপর আবার চার্জ দিলে ব্যাটারি সবচেয়ে ভালো থাকবে।
ব্যাচমান জানিয়েছেন, তাঁর প্রতিষ্ঠানের স্পনসর করা ব্যাটারি ইউনিভার্সিটি নামের একটি সাইট থেকে ল্যাপটপে চার্জ দেওয়ার নিয়মকানুনসহ নানা তথ্য জেনে নিতে পারবেন আগ্রহীরা।
সাইটটির লিংক হচ্ছে (http://batteryuniversity.com/)
ব্যাচমান আরও জানান, ব্যাটারির চার্জ দেওয়া ও চার্জ খালি করার বিষয়টি নিয়মিত ঘটলেই কেবল ব্যাটারির আয়ু বাড়তে পারে। ব্যাটারিতে পূর্ণ চার্জ দিলে ব্যাটারি খালি হতে সময় লাগে আর অতিরিক্ত চার্জে ব্যাটারির কোষগুলো ধীরে ধীরে চার্জ ধরে রাখার ক্ষমতা কমে যায়। অতিরিক্ত চার্জে ব্যাটারির কোষগুলো ফুলে ওঠে এবং ব্যাটারি নষ্ট হয়ে যায়।
ল্যাপটপের ব্যাটারি বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হচ্ছে, ব্যাটারি আইকনের দিকে তাকিয়ে ৮০ শতাংশ চার্জ হলে চার্জার খুলে ফেলা উচিত আবার চার্জ ৪০ শতাংশের নীচে চলে এলে চার্জার লাগানো যেতে পারে।

লোডিং, লোডিং!

লোডিং, লোডিং!

কম্পিউটারের ধীরগতি আপনার রাতের ঘুম নষ্ট করছে? কোনো ওয়েবসাইট লোড হতে গিয়ে কখনো কখনো এত দেরি হয় যে, রাগে ল্যাপটপ জানালা দিয়ে ছুড়ে ফেলতে ইচ্ছা করে? চিন্তা করবেন না, এ ধরনের ইচ্ছা শুধু আপনার একার নয়, বিশ্বের উন্নত দেশের অনেক মানুষেরই হয়। দ্রুতগতির ইন্টারনেট সংযোগ থাকার পরও অনেক দেশের কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের ধৈর্যহারা করে ফেলে শম্বুকগতির কম্পিউটার। প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট ম্যাশেবলের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সম্প্রতি মেমরি কার্ড ও এসএসডি নির্মাতা স্যানডিস্ক কর্তৃপক্ষ কম্পিউটারের শম্বুকগতির বিষয়টি নিয়ে বিশ্বব্যাপী একটি জরিপ চালিয়েছে।
স্যানডিস্কের জরিপে দেখা গেছে, কম্পিউটারের গতি নিয়ে ১৪ শতাংশ মার্কিন নাগরিক অসন্তুষ্ট ও হতাশায় ভুগছেন এবং তাঁদের রাগ গিয়ে পড়ছে যন্ত্রের ওপর। এ জরিপে শতকরা ২৭ শতাংশ মানুষ রায় দিয়েছেন, তাঁদের কম্পিউটারের পারফরম্যান্স খারাপ হওয়ার কারণে রাতের ঘুম নষ্ট হয়। ধীরগতির কম্পিউটারে কাজ করার জন্য রাত জেগে বসে থাকতে হয়।

স্যানডিস্কের গবেষকেরা পরীক্ষা করে দেখেছেন, মার্কিন নাগরিকেরা কম্পিউটারের ধীরগতির কারণে তাঁদের অবসর সময় থেকে বছরে গড়ে ১১৯ ঘণ্টা কম্পিউটারের সামনে বসে নষ্ট করেন।

২০১৩ সালের জুন মাস পর্যন্ত বিশ্বের আট হাজার কম্পিউটার নিয়ে স্যানডিস্ক এ গবেষণা চালিয়েছে।
গবেষকেরা জানিয়েছেন, তাঁদের জরিপের সময় অধিকাংশ মার্কিন কম্পিউটার ব্যবহারকারী জানিয়েছেন, ইন্টারনেটের ধীরগতির কারণে রাতের ঘুম নষ্ট হয়, মেজাজ বিগড়ে যায়, এমনকি সারা দিন মেজাজ খারাপ হয়ে থাকে। বাড়িতে বা অফিসে ল্যাপটপ ও ডেস্কটপের ক্ষেত্রে সমস্যার কথা জানান তাঁরা। কম্পিউটারের চেয়ে মুঠোফোনে এ ধরনের ঝামেলা কম বলেও জানান জরিপে অংশ নেওয়া ব্যক্তিরা।
জরিপে কম্পিউটারে ফাইল স্থানান্তরে বছরে গড়ে দুই দিনেরও বেশি সময় নষ্ট হয় বলে জরিপে উঠে এসেছে। এ সময় বয়স্করা বেশি অধৈর্য হয়ে উঠলেও তরুণেরা এ সময় ধৈর্য ধরতে পছন্দ করেন।
জরিপে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও জার্মান নাগরিকেরা কম্পিউটারের গতি নিয়ে বেশি অধৈর্য হয়ে পড়েন বলে জানা গেছে। জরিপের ফল অনুযায়ী, কম্পিউটারের ধীরগতির কারণে শতকরা ২৩ শতাংশ মানুষ রেগে নিয়ে কম্পিউটারের ওপর হাত তোলেন বলে রায় দিয়েছেন। এ ছাড়া চীনের নাগরিকদের শতকরা ৩৭ শতাংশ ধীরগতির কম্পিউটারের কারণে মেজাজ চড়ে যাওয়ার কথা জানান।
স্যানডিস্ক কর্তৃপক্ষের পরামর্শ হচ্ছে, নানা কারণে কম্পিউটারের গতি ধীর হয়ে যেতে পারে। এর মধ্যে একটি কারণ কম্পিউটারের হার্ড ড্রাইভে সমস্যা। হার্ড ড্রাইভের পরিবর্তে সলিড স্টেট ড্রাইভ বা এসএসডি ব্যবহার করলে কম্পিউটারের গতি বাড়তে পারে।

কম্পিউটারের গতি কমে যাওয়ার আরেকটি কারণ হতে পারে কম্পিউটার ডিস্কে অপ্রয়োজনীয় ফাইল জমে থাকা। নিয়মিত হার্ডডিস্ক পরিষ্কার রাখলে আপনার কম্পিউটারের গতি কমার আশঙ্কা কম। টেম্পোরারি ইন্টারনেট ফাইলের মতো বেশ কিছু ফাইল এ প্রক্রিয়ায় মুছে ফেলা সম্ভব। এগুলো মূলত কম্পিউটারের হার্ডডিস্কে জমা হওয়া ওয়েবপেজ। এই পাতাগুলো মুছে ফেলতে স্টার্ট বাটন থেকে অল প্রোগ্রামে যেতে হবে। সেখান থেকে অ্যাকসেসরিজে গিয়ে সিস্টেম টুল থেকে ডিস্ক ক্লিনআপ নির্বাচন করে অপ্রয়োজনীয় ফাইল মুছে ফেল যায়।

 

Free All

বিনা মূল্যেই দরকারি সবকিছু

 ইন্টারনেটে অনেক ঘেঁটে নিজের কাঙ্ক্ষিত ফাইলটি খুঁজে পাচ্ছেন না? খুঁজে পেলেও সেটি নামানোর (ডাউনলোড) ঝামেলায় পড়তে হয়। এ ক্ষেত্রে বিনা মূল্যে যেকোনো ফাইল, বই, গেম, সিনেমা ও সফটওয়্যার পেতে পারেন টরেন্ট সাইটে।
বিট টরেন্ট প্রটোকল ব্যবহার করে নির্দিষ্ট সার্ভার থেকে পিয়ার নেটওয়ার্কের মাধ্যমে সবার সঙ্গে ভাগাভাগি করা যায় (শেয়ার) এমন ফাইলকে বলা হয় টরেন্ট ফাইল। তাই কাঙ্ক্ষিত ফাইল নামাতে কোনো ঝামেলা বা আইনি বাধা থাকে না। এ জন্য https://kickass.to বা জনপ্রিয় যেকোনো টরেন্ট সাইটে গিয়ে আপনার পছন্দের বিষয়টি খুঁজে নিয়ে Download Torrent চেপে .torrent ফাইল নামিয়ে নিন। খেয়াল রাখবেন, যে টরেন্ট ফাইলটি নামাবেন, তার সিড এবং লিচ যেন বেশি থাকে। এ তথ্য সব টরেন্ট ফাইলের সঙ্গে উল্লেখ করা থাকে। এবার www.vuze.com ওয়েব ঠিকানায় গিয়ে ভুজ বিট টরেন্ট সফটওয়্যার নামিয়ে নিয়ে কম্পিউটারে ইনস্টল করুন। এটি ইন্টারনেট-সংযোগ ব্যবহার করে ইনস্টল হয়, তাই কাজটি সম্পন্ন হতে কিছু সময় নেবে। এ ছাড়া নামানোর কাজটি www.utorrent.com সাইট থেকে ইউ-টরেন্ট ক্লায়েন্ট এবং www.zbigz.com ঠিকানায় গিয়ে সরাসরি করা যায়। তবে কাঙ্ক্ষিত টরেন্ট ফাইল ডাউনলোডের জন্য ভুজ বিট টরেন্ট বেশি গতি দিয়ে থাকে। ইনস্টল সম্পন্ন হলে ভুজ চালু করে File>Open>Torrent File-এ ক্লিক করে সেটি খুলুন। এবার Add files চেপে এর আগে নামানো .torrent-যুক্ত টরেন্ট ফাইলটি নির্বাচন করে ওকে করুন। পরের পৃষ্ঠায় Save location বোতাম চেপে ফাইলটি যেখানে রাখতে চান, সেটি দেখিয়ে দিয়ে ওকে করলে দ্রুতগতিতে ফাইল নামানোর কাজ শুরু হবে।